মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সেটেলমেন্ট অফিস
 

এটি ভূমি জরিপ কার্যক্রমের মাঠ পর্যায়ের স্থায়ী অফিস। এই অফিস ভূমি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ও ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরের অধীন জোনাল সেটেলমেন্ট অফিস, বাগেরহাট জোন, বাগেরহাট এর মাধ্যমে পরিচালিত হয়।

এটি ভূমি জরিপ কার্যক্রমের মাঠ পর্যায়ের স্থায়ী অফিসএখনও বাংলাদেশের প্রতিটি উপজেলায় সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারের কার্যালয় আছে

দপ্তর প্রধানের পদবী: সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার।

কার্যক্রম: সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারের কার্যালয় এর উল্লেখযোগ্য কার্যক্রম হল ভূমি নকশা ও রেকর্ড।

  • কী সেবা কীভাবে পাবেন
  • প্রদেয় সেবাসমুহের তালিকা
  • সিটিজেন চার্টার
  • সাধারণ তথ্য
  • সাংগঠনিক কাঠামো
  • কর্মকর্তাবৃন্দ
  • তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা
  • কর্মচারীবৃন্দ
  • বিজ্ঞপ্তি
  • ডাউনলোড
  • আইন ও সার্কুলার
  • ফটোগ্যালারি
  • প্রকল্পসমূহ
  • যোগাযোগ

নাগরিক ও সরকারী পর্যায়ে সমস্যা সমূহ এবং সার্ভিস আইডেন্টিফিকেশন

 

ক্রমিক নং

সেবা

সেবা প্রদান / প্রাপ্তির ক্ষেত্রে অসুবিধাসমূহ

নাগরিক পর্যায়

সরকারী পর্যায়

০১.

ভূমি নকশা ও রেকর্ড হালনাগাদকরণ:

 

ক) নকশা প্রস্তুতি:

(ক্যাডাস্ট্রাল সার্ভে)

ভূমি মালিকগণ অনেক সময় মাঠ জরিপ (নকশা প্রস্তুতির সময়) কাজে উপস্থিত থাকতে পারেন না বিধায় সঠিক নকশা প্রস্তুতিতে অসুবিধা হয়

তৃণমূল পর্যায়ে জরিপভুক্ত মৌজার প্রতিটি ভূমি মালিককে ভূমি জরিপ কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিতকরণে যথেষ্ট প্রচার প্রচারণা চালানো সম্ভব হয়নাবিশেষভাবে চরাঞ্চলের ভূমি মালিকগণ দূরবর্তী এলাকায় অবস্থান করেন বিধায় তাদের সময়মত অবহিত করানো যায় না

 

খ) রেকর্ড প্রস্তুতি:

(খানাপুরী)

সঠিক সময় মালিকানার সঠিক ও প্রয়োজনীয় দলিলপত্র উপস্থাপন করতে না পারা

রেকর্ড প্রস্তুতির মুহূর্তে তাৎক্ষণিক ভাবে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রাপ্তির সরকারী পর্যায়ে দীর্ঘসূত্রিতা

 

গ) বুঝারত:

অসচেতনতা, অজ্ঞতা, অনুপস্থিতি

 

ঘ) তসদিক:

(এটেস্টেশন)

 

ঙ) খসড়া প্রকাশনা ও আপত্তি মামলা দায়ের:

বিভিন্ন কারণে খসড়া প্রকাশনাকালিন নির্দিষ্ট সময়ে শতভাগ ভূমি মালিকের হাজির হতে না পারাফলে প্রয়োজনে সময়মত আপত্তি মামলা দায়ের করতে না পারা

বিধি মোতাবেক ৩০ কাযর্দিবস খসড়া প্রকাশনার সময় বর্তমান প্রেক্ষাপটে কমতবে প্রয়োজনানুযায়ী সময় বৃদ্ধি করা যায়

 

চ) আপত্তি মামলা শুনানি:

পক্ষগণের নির্ধারিত তারিখে নোটিশ প্রাপ্তিতে সমস্যার কারণে হাজির হতে না পারাকখনও নোটিশ গ্রহণে অনিহা/ গ্রহণ না করা/ গরহাজির

বর্তমানে ভূমি জরিপে মালিকানা সংক্রান্ত জটিলতা বেশী হওয়ায় কেস সংখ্যা বেশীতবে সে অনুপাতে জনবল বৃদ্ধি পায়নি বিধায় সময়মত নোটিশ জারী করায় সমস্যা হয়অবকাঠামো/ প্রযুক্তিগত /নিরাপত্তা সমস্যা সংক্রান্ত

 

ছ) আপীল মামলা শুনানি:

 

জ) চূড়ান্ত প্রকাশনা:

বিভিন্ন কারণে চূড়ান্ত প্রকাশনাকালিন নির্দিষ্ট সময়ে শতভাগ ভূমি মালিকের হাজির হতে না পারাফলে ছাপাজনিত, করণীক কিংবা নকশা সংশোধন সংক্রান্ত কোন সমস্যা হলে প্রয়োজনে আবেদন দাখিল দায়ের করতে না পারা

বিধি মোতাবেক ৩০ কার্যদিবস চূড়ান্ত প্রকাশনার সময় বর্তমান প্রেক্ষাপটে কমতবে প্রয়োজনানুযায়ী সময় বৃদ্ধি করা যায়

ভূমিমালিকগণকে সেবাপ্রাপ্তি সম্পর্কে সচেতন করা দরকার

মুদ্রণে নিযুক্ত ব্যাক্তিগণের রেকর্ড প্রস্তুতের প্রক্রিয়া ও ফরমেট সম্পর্কে ধারণার স্বল্পতা

 

 নাগরিক সেবার তথ্য সারণী

 



ক্রমিক নং

বিভাগ/দপ্তর

সেবাসমুহ/

সেবার নাম

দায়িত্ব প্রাপ্ত

কর্মকর্তা/কর্মচারী

সেবা প্রদানের পদ্ধতি

সেবা প্রদানের প্রয়োজনীয় সময়

সেবা প্রদানের ফি

Frequency

সংশ্লিষ্ট আইন/বিধি বিধান

সেবা প্রদানে ব্যর্থ হলে প্রতিকারের বিধান

০১.

ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তর অধীন জোনাল সেটেলমেন্ট অফিস ও তদাধীন উপজেলা সেটেলমেন্ট অফিস

নকশা প্রস্তুতি:

(ক্যাডাস্ট্রাল সার্ভে)

সরদার আমিন

বদর আমিন

চেইনম্যান

 

পি-৭০ শীটে সরেজমিন মোতাবেক সঠিকভাবে প্রতিটি ভূমি মালিকের প্লট এর নকশা অংকন করামৌজা সীমানা মিল করা, প্রযোজ্য ক্ষেত্রে মৌজা সীমানা বিরোধ নিষ্পত্তি করাসীমানা নির্ধারণ পুর্বক

স্থায়ী সীমানা পীলার স্থাপন করা দরকার

নকশা প্রস্তুতকালিন মৌজার এরিয়া অর্থাৎ ভূমির পরিমাণ অনুযায়ী সময়

ফি নেইতবে মৌজা সীমানা বিরোধ থাকলে আবেদনকারী ৫০০ টাকার কোট ফি প্রদান করে প্রতিকার প্রার্থনা করতে পারবেন

প্রতিদিন প্রতি আমিন ১৬" = ১ মাইল স্কেলে কমপক্ষে ১৫ একর

বেঙ্গল সার্ভে এ্যাক্ট, ১৮৭৫ এর ৩ ধারা (বেঙ্গল এ্যাক্ট নং ৫, ১৮৭৫), টেকনিক্যাল রুলস ১৯৫৭ এর ২য় অধ্যায় ২৭ হতে ৩০ বিধি, রাস্ট্রীয় অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ব আইন ১৯৫০ এর ১৪৪(১) ধারা (১৯৫১ সনের ২৮ নং এ্যাক্ট), প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ২৭ নং বিধি

উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারকে অবহিতকরণ

পীলার স্থাপন কাজে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের প্রতিনিধি থাকা অত্যাবশ্যক এবং তথ্য সংরক্ষণ আবশ্যক

০২.

 

রেকর্ড প্রস্তুতি:

(খানাপুরী)

সরদার আমিন

বদর আমিন

চেইনম্যান

 

সরেজমিন মোতাবেক অংকিত প্রতিটি প্লট এ গিয়ে দখল, মালিকানার দলিলাদি অর্থাৎ যার ক্ষেত্রে যা প্রযোজ্য (পূর্ববর্তী রেকর্ডের পর্চা, খারিজ পর্চা যদি থাকে, ক্রয়সূত্রে মালিক হলে রেজিস্ট্রিকৃত দলিল অথবা প্রত্যায়িত নকল, নিলাম ক্রয়ের ক্ষেত্রে বায়নামা ও দখলনামা/ ডি সি আর সরকার/ সংস্থা কর্তৃক বন্দোবস্ত/ বরাদ্ধমূল্যে মালিক হলে তার কাগজপত্র, আদালতের আদেশমূলে মালিক হলে রায়ের কপি এবং দখল প্রমানের জন্য দখলনামা, অছিয়তমূলে মালিক হলে অছিয়তকারীর মৃত্যুর পরে অছিয়ত Probate করা হয়ে থাকলে তার প্রমাণ/ আদেশ, দান/উইল/হেবা মূলে মালিক হলে এ সংক্রান্ত রেজিস্ট্রি দলিল, বিনিময় সম্পত্তি হলে বিনিময়/হস্তান্তর দলিল, এওয়াজ মূলে মালিক হলে রেজিস্ট্রি এওয়াজ দলিল, অর্পিত সম্পত্তির তালিকা হতে অবমুক্ত করা হলে আদেশের কপি, উত্তরাধিকার সূত্রে মালিক হলে উত্তরাধিকার সনদপত্র, অংশীদারি সম্পত্তি বন্টিত হলে রেজিস্ট্রিকৃত বন্টননামা দলিল, খাজনা প্রদানের দাখিলা ইত্যাদি মালিকানা প্রমাণের কাগজপত্র) যাচাই করে খতিয়ান প্রস্তুতকরণ

নকশা প্রস্তুত শেষে দাগের সংখ্যা অনুযায়ী সময়

কোন ফি নেই

প্রতিদিন প্রতি আমিন ৬০টি দাগ

টেকনিক্যাল রুলস ১৯৫৭, প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ২৭ নং বিধি

উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারকে অবহিতকরণ

০৩.

 

খানাপুরী কাম বুঝারত:

সরদার আমিন

বদর আমিন

চেইনম্যান

 

ব্লু-প্রিন্ট শীটে নকশা হলে একই সাথে নকশা হাল-নাগাদ করা ও পাশাপাশি উপরো‍ক্ত কাগজপত্র পরীক্ষা করে রেকর্ড প্রস্তুত করা ও বুঝিয়ে দেয়া

দাগের সংখ্যা অনুযায়ী সময়

ফি নেইতবে এ স্তরে মৌজা সীমানা বিরোধ থাকলে তা নিষ্পত্তিতে ৫০০ টাকার কোট ফি এর সাথে বিলম্ব ফি হিসাবে বিঘা প্রতি ১০০ টাকা ও তদন্ত ফি কমপক্ষে ১০ টাকা প্রদান করতে হবে

প্রতিদিন প্রতি আমিন বদরসহ ৬০টি দাগ

এস এস ম্যানুয়াল ১৯৩৫, সালের বেঙ্গল সার্ভে এ্যাক্ট ১৮৭২, টেকনিক্যাল রুলস ১৯৫৭ এর ৪ অধ্যায় ১৩ নং বিধি, প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ২৭ নং বিধি

উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারকে অবহিতকরণ

০৪.

 

বুঝারত:

সরদার আমিন

বদর আমিন

চেইনম্যান

পি-৭০ শীটের নকশায় দাগের এরিয়া নির্ণয় ও খানাপুরী স্তরে প্রস্তুতকৃত রেকর্ডের হুবহু কপি করে ভূমি মালিকগণের নিকট বিতরণ এবং প্রতিটি প্লট এ গিয়ে ভূমির পরিমান, নকশার সঠিকতা যাচাই অন্তে প্রয়োজনে সংশোধন করে দখল, মালিকানার দলিলা ইত্যাদি পরীক্ষান্তে মাঠ খতিয়ান বুঝিয়ে দেওয়াকোন বিরোধ দেখা দিলে বিবাদগ্রহণ

রেকর্ড প্রস্তুত শেষে খতিয়ান কপি বিতরণের পর দাগের সংখ্যা অনুযায়ী সময়

উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারকে অবহিতকরণ

বিবাদ নিষ্পত্তি

০৫.

 

তসদিক:

(এটেস্টেশন)

তসদিক অফিসার

(উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার) -১

বেঞ্চ সহকারী- ১

৩৷সার্ভেয়ার- ১

এম এল এস এস- ১

চেইনম্যান- ১

১৫ দিন পূর্বে ১টি ও ৭ দিন পূ্র্বে রিমাইন্ডার নোটিশ জারী করে খতিয়ানের ক্রম অনুযায়ী প্রতি কর্মদিবসে বর্তমান হারে নির্ধারিত ৪০টি খতিয়ানের কর্মসূচী দিয়ে সে অনুযায়ী তসদিক অফিসার সকল কাগজপত্র যাচাই করে দাখিলকৃত খতিয়ান তসদিক বা সত্যায়িত করে দিবেনকোন বিবাদ দেখা দিলে তা শুনানি দিয়ে নিষ্পত্তি করবেন

বুঝারত সম্পন্ন হওয়ার পর খতিয়ান সংখ্যা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় সময়তবে প্রতি ভূমি মালিক প্রতিটি খতিয়ানের জন্য ১ দিন সময় পাবেন

তসদিক ফি নেইতবে নকশা পুনরায় পরিমাপ (বদর) করার প্রয়োজন হলে বদর ফি হিসাবে প্রতি দাগে ৫ টাকা, মৌজার অবস্থান ক্যাম্প হতে ৫কিঃমিঃ এর অধিক হলে ১ জন সার্ভেয়ারের ১দিনের মূল বেতনের সমপরিমান টাকা ডিসিআর এর মাধ্যমে প্রদান করতে হয়

প্রতিদিন প্রতি তসদিক অফিসার ৪০টি খতিয়ান

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ২৮ নং বিধি

টেকনিক্যাল রুলস এর ৯ অধ্যায়ের ৬৩ বিধি

সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারকে অবহিতকরণ

০৬.

 

খসড়া প্রকাশনা ও আপত্তি মামলা দায়ের:

সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার- ১

পেশকার -১

এম এল এস এস- ১

তসদিক পরবর্তী যাচাই কাজ, প্রস্তুতকৃত খতিয়ান একত্রিকরণ ও ডিপি নম্বর প্রদান শেষে খসড়া প্রকাশনা আরম্ভের তারিখ, স্থান ইত্যাদি ভূমি মালিকগণকে নোটিশের মাধ্যমে জ্ঞাত করে নকশা ও খতিয়ানে কোনরূপ ভুলত্রুটি আছে কিনা তা দেখা ও প্রয়োজনে আপত্তি মামলা দায়েরের জন্য ভূমি মালিকগণকে প্রদর্শন করা হয়

মোট ৩০ কাযর্দিবস

আপত্তি মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে দরখাস্ত বাবদ ১০ টাকা, প্রতি সাকিন ৫ টাকা হারে কোর্ট ফি প্রদান করতে হবে

-

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ২৯ নং বিধি

রাষ্ট্রীয় অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ব আইন ১৯৫০ এর ১১৬ ধারা

জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসার/

চার্জ অফিসারকে অবহিতকরণ

০৭.

 

আপত্তি মামলা শুনানি:

আপত্তি অফিসার

(সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার/ক্ষমতা সম্পন্ন কর্মকর্তা)- ১

বেঞ্চ ক্লার্ক - ১

সার্ভেয়ার - ১

প্রসেস সার্ভার - ১

এম এল এস এস - ১

বাদী ও বিবাদী উভয়কে নোটিশ জারীর মাধ্যমে শুনানির তারিখ, সময় ও স্থান অবহিত করিয়ে পক্ষগণের কিংবা তাদের উপযুক্ত প্রতিনিধির উপস্থিতিতে মালিকানা সংক্রান্ত সকল কাগজপত্র যাচাই, দখল পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত প্রদান ও সেমতে পরিবর্তন হলে তা প্রযোজ্য ক্ষেত্রে নকশা ও রেকর্ডে তামিলকরণরায়ে অসন্তুষ্ট হলে রায় প্রদানের ৩০ কাযর্দিবসের মধ্যে নকল গ্রহণ ও আপীল মামলা দায়ের করতে হবে

আপত্তি মামলার সংখ্যার উপর সময় নির্ভরশীল

শুনানির সময় নকশা বদরের প্রয়োজন হলে প্রতি দাগে ৫ টাকা, মৌজার অবস্থান ক্যাম্প হতে ৫কিঃমিঃ এর অধিক হলে ১ জন সার্ভেয়ারের ১দিনের মূল বেতনের সমপরিমাণ টাকা ফি প্রদান করতে হয়রায়ের জাবেদা নকল এর জন্য দরখাস্তের সাথে ১০ টাকার কোট ফি ও প্রয়োজনীয় ফোলিও প্রদান করতে হবে

আপীল মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে দরখাস্ত বাবদ ১০ টাকা, প্রতি সাকিন ৫ টাকা হারে কোট ফি প্রদান করতে হবে

প্রতি কর্মদিবসে কম/বেশী ১৫টি আপত্তি মামলা শুনানি

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ৩০ নং বিধি

সাক্ষ্য আইনের ৭৬ ধারা অনুযায়ী জাবেদা নকল এর জন্য সেটেলমেন্ট অফিসারের দেয় ক্ষমতা সম্পন্ন কর্মকর্তা

সেটেলমেন্ট অফিসার/

চার্জ অফিসারকে অবহিতকরণ

০৮.

 

আপীল মামলা শুনানি:

আপীল অফিসার

(চার্জ অফিসার/ সহকারী সেটেলমেন্ট ১অফিসার/ক্ষমতা সম্পন্ন কর্মকর্তা) -১

বেঞ্চ ক্লাক - ১

সার্ভেয়ার - ১

প্রসেস সার্ভার - ১

এম এল এস এস - ১

বাদী ও বিবাদী উভয়কে নোটিশ জারীর মাধ্যমে শুনানির তারিখ, সময় ও স্থান অবহিত করিয়ে পক্ষগণের কিংবা তাদের উপযুক্ত প্রতিনিধির উপস্থিতিতে প্রয়োজনে জাতীয় পরিচয়পত্রসহ মালিকানা সংক্রান্ত সকল কাগজপত্র যাচাই ও দখল পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত প্রদান ও সেমতে পরিবর্তন হলে তা প্রযোজ্য ক্ষেত্রে নকশা ও রেকর্ডে তামিলকরণটেবিল ডায়েরি ও মৌজা ওয়ার রেজিষ্টার সংরক্ষণ

আপীল মামলার সংখ্যার উপর সময় নির্ভরশীল

শুনানির সময় নকশা বদরের প্রয়োজন হলে প্রতি দাগে ৫ টাকা, মৌজার অবস্থান ক্যাম্প হতে ৫কিঃমিঃ এর অধিক হলে ১ জন সার্ভেয়ারের ১দিনের মূল বেতনের সমপরিমাণ টাকা ফি প্রদান করতে হয়

প্রতি কর্মদিবসে কম/বেশী ১০টি আপীল মামলা শুনানি

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ৩১ নং বিধি

সেটেলমেন্ট অফিসারকে অবহিতকরণ

০৯.

 

চূড়ান্ত প্রকাশনা:

সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার - ১

অফিস সহকারী - ১

এম এল এস এস - ১

চূড়ান্ত যাচাই, খতিয়ান ও নকশা মুদ্রণ শেষে সেটেলমেন্ট প্রেস হতে খতিয়ান ও ম্যাপ মুদ্রণ প্রেস হতে মুদ্রিত ম্যাপ পাওয়ার পর চূড়ান্ত প্রকাশনার নোটিশ জারী ও চূড়ান্ত প্রকাশনার তারিখ, স্থান ও সময় ইত্যাদি উল্লেখ করে ভূমি মালিকগণকে খতিয়ান ও নকশা সরকারী ক্রয়মূল্যে ক্রয় করতে জানিয়ে দেওয়া হয়এ সময় খতিয়ান ও নকশায় কোনরুপ ছাপাজনিত, করণীক কিংবা তঞ্চকতাপূর্ণ ভুল পাওয়া গেলে তা সংশোধনের জন্য ভূমি মালিককে সেটেলমেন্ট অফিসার বরাবরে আবেদন দাখিল করতে হয়

৩০ কর্মদিবস নকশা ও রেকর্ড বিক্রয় করা হয়

প্রতিটি খতিয়ান ৬০ টাকা ও প্রতিটি নকশা ৩৫০ টাকাসংশোধন আবেদনে ১০ টাকার কোট ফি প্রদান করতে হয়

৩০ কর্মদিবস

প্রজাস্বত্ব আইনের ১৪৪ ধারার ৭ নং উপ-ধারা

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ৩৩ নং বিধি

সেটেলমেন্ট অফিসার/চার্জ অফিসারকে অবহিতকরণ

১০.

 

চূড়ান্ত প্রকাশনাকালিন প্রাপ্ত আবেদন অনুযায়ী সংশোধনঃ

জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসার

অফিস সহকারী - ১

এম এল এস এস - ১

জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসার/

ক্ষমতাসম্পন্ন কর্মকর্তা দ্বারা আবেদন যাচাই করে প্রয়োজনে সংশোধনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়

৬০দিনের মধ্যে

 

৬০দিন

সার্ভে এন্ড সেটেলমেন্ট ম্যানুয়াল ১৯৩৫ এর ৫৩৩, ৫৩৪ ও ৫৩৭ নং অনুচ্ছেদ

পরিচালক (ভূমি রেকর্ড)

ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তর

 

 

চূড়ান্ত প্রকাশনা সম্পন্নের সনদ প্রদান:

চূড়ান্ত প্রকাশনা অফিসার (সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার/ ক্ষমতা সম্পন্ন কর্মকর্তা)

চূড়ান্ত প্রকাশনা সম্পন্নের ৬০ দিনের মধ্যে প্রকাশনা অফিসার সার্টিফিকেট প্রদান করবেন

-

-

৬০দিনের মধ্যে

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ৩৪(১) নং বিধি

 

১১.

 

গেজেট্ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের প্রস্তাব প্রেরণ:

সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার

ভূমি মন্ত্রণালয়ে গেজেট বিজ্ঞপ্তি জারীর পত্র প্রেরণের জন্য সেটেলমেন্ট অফিসারকে অনুরোধ করে পত্র প্রেরণ

-

-

-

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ৩৪(২) নং বিধি

 

১২.

 

চূড়ান্ত রেকর্ড হস্তান্তর:

সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার

গেজেট বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর জেলা প্রশাসকের কাযার্লয়সহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরসমূহে চূড়ান্ত প্রকাশিত নকশা ও রেকর্ড হস্তান্তরের মধ্য দিয়ে কাযর্ক্রম সমাপ্ত হয়

 

 

 

প্রজাস্বত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর ৩৪ নং বিধি

সার্ভে এন্ড সেটেলমেন্ট ম্যানুয়াল ১৯৩৫ এর ৫৬৯ হতে ৫৭২ অনুচ্ছেদ

 

১৩.

 

তথ্য সেবা

পেশকার

মৌজাসমূহের জরিপের সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কিত তথ্য প্রদান

১ দিন

নেই

-

-

সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারকে অবহিতকরণ

   হাল নাগাত জরিপ কাজের তথ্যাদিঃ-
   মোট মোজার সংখ্যা-  ২৪৬ টি
   মোট সীটের সংখ্যা-   ৩৯১ টি
   মোট আয়তন-  ১,০৯,৭৬৬.৩৩ একর বা ৪৩৯.০৭ বর্গ কিঃ মিঃ
   তসদিক স্তর-  সমাপ্ত
   তসদিক যাঁচ-  সমাপ্ত
   ডিপি-  সমাপ্ত
   আপত্তি স্তর-   সমাপ্ত
   আপীল স্তর-  সমাপ্ত
   চূড়ান্ত যাঁচ স্তর-  সমাপ্ত
   কালীকরণ স্তর- সমাপ্ত
   প্রেসে প্রেরণকৃত মোজার সংখ্যা- ২৪৬ টি  
   প্রেসে প্রেরণকৃত সীটের সংখ্যা- ৩৯১ টি
   চূড়ান্ত প্রকাশনা প্রাপ্ত মৌজার সংখ্যা- ১২৬ টি
   চূড়ান্ত প্রকাশনা প্রাপ্ত  সীটের সংখ্যা-১৭২ টি
   চূড়ান্ত প্রকাশিত  মৌজার সংখ্যা- ১১০ টি
   চূড়ান্ত প্রকাশিত  সীটের সংখ্যা-  ১৫১ টি
   গেজেট বিজ্ঞপ্তি  মৌজার সংখ্যা- ৫৬ টি

সিটিজেন চার্টার

১৯৫০ সালের রাষ্ট্রীয় অধিগ্রহণ ও প্রজাস্বত্ত্ব আইনের অধীন প্রণীত প্রজাস্বত্ত্ব বিধিমালা ১৯৫৫ এর বিধান অনুসরণ ভূমি রেকর্ড ও জরিপের কাজসমূহ স্তরভিত্তিক সম্পাদিত হয়ে থাকে। রেকর্ড প্রণয়ন ও নকশা প্রস্ত্তত কাজে নিয়োজিত অধিদপ্তরের কর্মকর্তা/কর্মচারীর সাথে সংশ্লিষ্ট ক্যাম্প অফিসে অথবা উপজেলায় অবস্থিত সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসারের কার্যালয়ে সরাসরি যোগাযোগ করে ভূমি মালিকগণ কাঙ্ক্ষিত সেবা গ্রহণ করতে পারেন। নিম্নবর্ণীত কর্মকর্তা/কর্মচারী জরিপের স্তরসমূহে যথা নিয়মে সেবা প্রদানে নিয়োজিত রয়েছে।

স্তরের নাম

 সেবার ধরন,বিবরণ ও ভূমি মালিকের করণীয়

সেবা প্রদানে নিয়োজিত কর্মকর্তা /কর্মচারী

বিজ্ঞপ্তি প্রচার

( প্রজাস্বত্ত্ব, আইনের ১৪৪(১) ও ৯৯(১) বিধি

জরিপ শুরু করার পূর্বে সেটেলমেন্ট অফিসার স্থানীয় প্রশাসনসহ ভূমি মালিকগণকে অবহিত করে জরিপ বিজ্ঞপ্তি প্রচার করেন। এ কাজে মাইকিং ও পত্রিকায় বিজ্ঞাপনসহ ব্যাপক জনসংযোগ করা হয়। জরিপ বিজ্ঞপ্তি ঘোষণার পর পরই ভূমি মালিকগণকে জরিপের প্রস্ত্ততিমূলক কাজ হিসাবে নিজ নিজ জমির আইল/সীমানা সঠিক ভাবে চি‎‎হ্নত করে রাখতে হবে।

জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসার/ সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার

ট্রাভার্স

কোন মৌজার নকশা সম্পূর্ণ নতুন করে প্রস্ত্তত করতে সরেজমিনের সাথে সঙ্গতি রেখে একটি নির্দিষ্ট স্কেলে প্রাথমিক ভাবে নকশা প্রস্ত্ততের যে কাঠামো স্থাপন করা হয় সেটাই ট্রাভার্স। ট্রাভার্সের উপর ভিত্তি করে পি ৭০ সীটের মাধ্যমে মৌজার নকশা প্রস্ত্তত করা হয়। কোন মৌজার পুরোনো নকশা অর্থাৎ ব্লু-পিন্ট সীটের উপর জরিপ করার ক্ষেত্রে ট্রাভার্স করা হয় না। এ স্তরে জরিপ কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা/কর্মচারীদের সাথে ভূমি মালিকগণকে যোগাযোগের তেমন প্রয়োজন নাই। তবে ভূমি মালিকগণ জমির আইল/সীমানা চি‎‎হ্নত করে রাখবেন।

ট্রাভার্স ক্যাম্প কর্মকর্তা / ট্রাভার্স সার্ভেয়ার।

কিস্তোয়ার

এই স্তরে সার্ভেয়ার/আমিনদল ভূমি মালিকগণ কর্তৃক চি‎‎হ্নত আইল/সীমানা অনুযায়ী প্রতি খন্ড জমি পরিমাপ করে মৌজার নকশা অংকন কিস্তোয়ার অথবা ব্লু-প্রিন্টে পুরোনো সংশোধন করেন। অনেকের ধারণা যে জরিপ কর্মচারীগণ জমির সীমানা ঠিক করে দেন। এ ধারণাটি সঠিক নয়। প্রকৃতপক্ষে জরিপ কর্মচারীগণ বিদ্যমান সীমানা অনুযায়ী নকশা প্রস্ত্তত করেন।

সার্ভেয়ার/ সরদার আমীন/ হল্কা অফিসার/উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার (কানুনগো) ক্যাডাস্ট্রাল সার্কেল অফিসার

খানাপুরী

(প্রজাস্বত্ত্ব বিধি মালার ২৪ বিধি)

কিস্তোয়ার স্তরে আঙ্কিত নকশার প্রত্যেকটি দাগে সরেজমিন উপস্থিত হয়ে সার্ভেয়ার আমিনদল জমির দাগ নম্বর দিবেন এবং মালিকের রেকর্ড,দলিল পত্র ও দখল যাঁচাই করে প্রাথমিকভাবে মালিকের নাম,ঠিকানা ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় তথ্য খতিয়ানে লিপিবদ্ধ (খানাপুরী) করেন। এ স্তরে ভূমি মালিকদের প্রধান কাজ হচ্ছে যথাসময়ে নিজে জমিতে উপস্থিত হয়ে সার্ভেয়ার আমিনকে জমির মালিকানা ও দখল সংক্রান্ত প্রমাণাদি উপস্থাপন করে খতিয়ানে ঐসব তথ্য লিপিবদ্ধ করানো।

সার্ভেয়ার/ সরদার আমিন/ হল্কা অফিসার

বুঝারত

(প্রজাস্বত্ত্ব বিধি মালার ২৬ বিধি)

বুঝারত অর্থ জমি বুঝিয়ে দেওয়া। এ স্তরে নতুন সার্ভেয়ার আমিনদল কর্তৃক খতিয়ান বা পর্চায় জমির পরিমাণ উল্লেখ করে বিনামূল্যে উক্ত পর্চা জমির মালিককে সরবরাহ (বুঝারত) করা হয়, যা ‘‘মাঠ পর্চা’’ নামে পরিচিত। পর্চা বিতরনের তারিখটি পূর্বেই নোটিশ/পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রচার/এলাকায় মাইকিং এর মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হয়। পর্চা বিতরনের নির্ধারিত তারিখে ভূমি মালিকগণ নিজে উপস্থিত থেকে জরিপ কর্মচারীগণের নিকট থেকে পর্চা সংগ্রহ করবেন। ভূমি মালিকগণ পর্চার সঠিকতা যাঁচাই করে দেখবেন এবং প্রাপ্ত পর্চার ভূল-ভ্রান্তি সংশোধন বা পরিবর্তন আবর্শক হলে নির্দিষ্ঠ বিবাদ

(Dispute)  ফরম পূরণ করে তা সার্ভেয়ার/আমিনের নিকট জমা দিবেন। হল্কা অফিসার সংশ্লিষ্ট পক্ষ গণের শুনানীর মাধ্যমে দ্রুত ঐ সকল বিবাদ নিষ্পত্তি করবেন। খানাপুরী স্তরে কোন কারণে মালিকের নাম,ঠিকানা ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় তথ্য খতিয়ানে রেকর্ড ভূক্ত হয়নি এমন ভূমি মালিকগণ বুঝারত স্তরে হল্কা অফিসারের নিকট আবেদনক্রমে ঐ সকল তথ্য রেকর্ড করাবার সুযোগ পাবেন। ভূমি মালিকগণকে মনে রাখতে হবে মাঠ পর্যায়ে সরেজমিন রেকর্ড করার এটাই শেষ সুযোগ। এর  পরেও রেকর্ড সংশোধন/প্রণয়নের সুযোগ থাকলেও তা হবে অপেক্ষাকৃত দূরবর্তী কোন ক্যাম্প অফিসে, যা জটিল ও যথেষ্ট সময় সাপেক্ষ।

সার্ভেয়ার/ সরদার আমিন/উপসহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার( কানুনগো) / সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার/ক্যাডাস্ট্রাল সার্কেল অফিসার।

খানাপুরী কাম বুঝারত

যখন কোন মৌজার ব্লু-প্রিন্ট সীটের জরিপ কাজ করা হয় তখন খানাপুরী ও বুঝারত স্তরের কাজ এক সাথে করা হয়।

 

তসদিক বা এ্যাটেষ্টেশন

(প্রজাস্বত্ত্ব বিধি মালার ২৮ বিধি)

ব্যাপক প্রচারের মাধ্যমে তসদিক স্তরের কাজ সম্পাদিত হয়। ক্যাম্প অফিসে তসদিক স্তরের কাজ সম্পাদন করেন এক জন উপসহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার(কানুনগো) বা রাজস্ব অফিসার। বুঝারত স্তরের মালিকানা সংক্রান্ত সকল কাগজপত্র ও প্রমাণাদি যাচাই করে প্রতিটি খতিয়ান সত্যায়ন করেন তসদিক অফিসার। এ স্তরে ভূমি মালিকগণ পূর্ববর্তী স্তরে প্রণীত পর্চা ও নকশায় কোন সংশোধন প্রয়োজন মনে করলে বিাবদ (Dispute) দাখিল করতে পারেন এবং উপযুক্ত প্রমান উপস্থাপন করে তা সংশোধনের সুযোগ নিতে পারেন। তসদিকৃত পর্চা জমির মালিকানার প্রাথমিক আইনগত ভিত্তি (Legal Document) হিসাবে বিবেচিত হয়। তাই এ স্তরের কাজটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

তসদিক অফিসার/ উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার (কানুনগো)

খসড়া প্রকাশনা (ডিপি) (প্রজাস্বত্ত্ব বিধি মালার ২৯ বিধি) ও আপত্তি দায়ের

তসদিক সমাপ্তির পর কোন এলাকার জমির প্রর্ণীত রেকর্ড{ খসড়া প্রকাশনা (ডিপি)} সর্বসাধারনের প্রদর্শনের জন্য মৌজা ভিত্তিক ৩৫দিন উন্মুক্ত রাখা হয়। খসড়া প্রকাশনা উন্মুক্ত রাখা সময়কাল উল্লেখপূর্বক ক্যাম্প অফিস হতে এজন্য বিজ্ঞপ্তিও প্রচার করা হয়। ভূমি মালিকগণের নামের আদ্যোক্ষর অনুযায়ী খতিয়ান বা পর্চা ক্রমবিন্যাস করা হয় বিধায় তসদিকৃত খতিয়ানটির নম্বর পরবর্তীতে বদলে যায়। তাই তসদিকৃত খতিয়ানের নতুন নম্বর অর্থাৎ ডিপি নম্বরটি সংগ্রহের জন্যও ভূমি মালিকগণকে নিজ নিজ পর্চাসহ খসড়া প্রকাশনা (ডিপি) ক্যাম্পে উপস্থিত হতে হয়। ডিপিতে প্রকাশিত খতিয়ান সর্ম্পকে কারো কোন আপত্তি বা দাবী থাকলে সরকার নির্ধারিত ১০ টাকার কোর্ট ফি দিয়ে আপত্তি দায়ের করা যাবে।এটিই ৩০ বিধির আপত্তি।

 

আপত্তি শুনানী (প্রজাস্বত্ত্ব বিধি মালার ৩০ বিধি)

ডিপি চলাকালে গৃহিত আপত্তি মামলা সমূহ সংশ্লিষ্ট পক্ষগণকে নোটিশ ইস্যু মারফত জ্ঞাত করে নির্দিষ্ট তারিখ, সময় ও স্থানে শুনানী গ্রহণ করে নিষ্পত্তি করা হয়। দেওয়ানী কার্যবিধি অনুসরণে এটি একটি বিচারিক কার্যক্রম। পক্ষগণ নিজে অথবা প্রয়োজনে মনোনীত প্রতিনিধির মাধ্যমে নিজ নিজ দাবী আপত্তি অফিসারের নিকট উপস্থাপন করতে পারেন।আপত্তি অফিসার পক্ষগণকে বিস্তারিত শুনানী দিয়ে কেস নথিতে লিপিবদ্ধ ও পর্যালোচনা করে তার সিদ্ধান্ত জানাবেন এবং আইনানুযায়ী প্রস্ত্ততকৃত রেকর্ডে প্রয়োজনীয় সংশোধন আনবেন।

সন্তোষজনক কারণ উল্লেখ না করে কোন একটি পক্ষের অনুপস্থিতিতে আপত্তি মামলা নিষ্পত্তি করার কোন বিধান নেই।

 

আপীল শুনানী (প্রজাস্বত্ত্ব বিধি মালার ৩১ বিধি)

আপত্তি রায়ে সংক্ষুদ্ধ কোন পক্ষ ৩১বিধিতে আপিল দায়ের করলে এ পর্যায়ে ঐ সকল আপীলের শুনানীও নিষ্পত্তি করা হয়। এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট আপত্তি মামলার রায়ের নকল সেটেলমেন্ট অফিসার বরাবর আবেদন দাখিলের মাধ্যমে সর্বাগ্রে উত্তোলন করতে হবে। এ জন্য সরকার নির্ধারিত নিম্নরূপহারে কোট ফি এবং প্রয়োজনীয় সংখ্যক ফলিও/কার্টিজ পেপার জমা দিতে হবে।

সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার/চার্জ অফিসার/ জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসার

বিষয়

কোর্ট ফি

ক) আবেদন পত্র

১০.০০ টাকা

খ) নকল (শব্দ)

   * ১ হতে ৩৬০

   * ৩৬১ হতে ৭২০

   * ৭২১ হতে ১০৮১

   * ১০৮২ হতে ১৪৪০

   * ১৪৪১ হতে১৮০০

   * ১৮০১ হতে ২১৬০

   * ২১৬১ হতে ২৫২০

   * ২৫২১ হতে ২৮৮০

 ২.৫০ টাকা

৫.০০ টাকা

৭.৫০ টাকা

১০.০০ টাকা

১২.৫০ টাকা

১৫.০০ টাকা

১৭.৫০ টাকা

২০.০০টাকা

আপত্তির রায় প্রদানের তারিখ থেকে (আপত্তির নকল সরবরাহের সময় বাদ দিয়ে) ৩০ দিনের মধ্যে আপীল দায়ের না করলে আবেদনটি তামাদির কারণে অগ্রহণযোগ্য হবে। আপীল একটি বিচারিক কার্যক্রম এবং আপীল ঘোষিত রায়ই চূড়ান্ত। আপীল স্তরের পরে প্রণীত রেকর্ড বিষয়ে কেবল মাত্র তঞ্চকতা ও করণিক ভূলের অভিযোগে জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসারের নিকট প্রজাস্বত্ত্ব বিধিমালার ৪২(ক) ও ৪২(খ) বিধি মোতাবেক প্রতিকার চাওয়া যায়।

চূড়ান্ত প্রকাশনা(প্রজাস্বত্ত্ব বিধি মালার ৩৩ বিধি)

উপরোক্ত স্তর সমূহের কাজ সমাপ্তির পর আনুষাঙ্গিক কার্যাদি সম্পন্ন করে পর্চা ও নকশা মুদ্রণ করা হয়। মুদ্রিত নকশা ও পর্চা পুনঃপরীক্ষা করে তা চূড়ান্ত প্রকাশনায় দেওয়া হয়। চূড়ান্ত প্রকাশনার জন্য সংশ্লিষ্ট উপজেলায় একটি ক্যাম্প  স্থাপন করা হয়। চূড়ান্ত প্রকাশনার সময় কাল ৩০ কর্মদিবস। এ স্তরে ভূমি মালিকগণ মুদ্রিত নকশা ও পর্চা সরকার কর্তৃক নির্ধারিত মূল্যে ক্রয় করতে পারেন। প্রতিটি পর্চা ৬০.০০ টাকা এবং প্রতিটি নকশা ৩৫০.০০ টাকা। কোন মৌজার চূড়ান্ত প্রকাশনা কোন কার্যালয়ে কবে থেকে আরম্ভ হবে সে সর্ম্পকে নোটিশ/পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়।

উপজেলা সেটেলমেন্ট অফিস

ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইব্যুনাল ও আপীলেট ট্রাইব্যুনাল

 মৌজা রেকর্ড চূড়ান্ত প্রকাশনা সংক্রান্ত গেজেট বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের এক বছরের মধ্যে চূড়ান্ত প্রকাশিত রেকর্ডের বিষয়ে কোন আপত্তি থাকলে সে সর্ম্পকে ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইবুনাল/ দেওয়ানী আদালতে প্রতিকার প্রার্থনা করা যাবে। ল্যান্ডসার্ভে ট্রাইব্যুনালে কেহ প্রতিকার না পেলে তিনি হাইকোর্টে ল্যান্ডসার্ভে আপীলেট ট্রাইব্যুনালেও আপীল করতে পারেন।

 

 মৌজা সীমানা নিয়ে বিরোধ

জরিপ চলাকালে কোন মৌজা/উপজেলা সীমানা সম্পর্কীয় বিষয়ে কোন বিরোধ দেখাদিলে সেটেলমেন্ট অফিসার খানাপুরী কাম-বুঝারত স্তরে উক্ত বিরোধ বিধিমতে নিষ্পত্তি করবেন। আন্তঃজেলা সীমানা বিরোধ মহাপরিচালক ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তর সংশ্লিষ্ট বিভাগীয় কমিশনার এবং জেলা প্রশাসক গনের সমন্বয়ে  নিষ্পত্তি করবেন।

 

ছবি নাম মোবাইল
এ, কে, এম শহীদুল্রাহ ০১৭১৭-৮৬৩৩৭৫

ছবি নাম মোবাইল
এ, কে, এম শহীদুল্রাহ ০১৭১৭-৮৬৩৩৭৫

0

সেটেলমেন্ট অফিস, কচুয়া, বাগেরহাট।